বুধবার   ১৬ জুন ২০২১

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
৫০

আইপিএল থেকে শিক্ষা নিচ্ছে পাকিস্তান

প্রকাশিত: ৬ মে ২০২১  

নিজস্ব প্রতিবেদক-

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যেই আইপিএল চলছিল। যেকোনোভাবেই হোক আইপিএল চালিয়ে যেতে হবে—গোঁ ধরেছিল বিসিসিআই। এক শহর থেকে আরেক শহরে ঘুরে ঘুরে জৈব সুরক্ষাবলয় সৃষ্টি করে আইপিএল খেলানো হচ্ছিল। এর মধ্যেই ভারতে করোনা প্রকট আকার ধারণ করেছে। মৃতের সংখ্যা দিনে তিন হাজার ছাড়িয়ে গেছে। দিনে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা টানা তিন লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যেও তুমুল সমালোচনার মধ্যে আইপিএল চলেছে।

‘আইপিএল ক্যারাভান’ দিল্লিতে এসেই খেয়েছে ধাক্কা। করোনার সবচেয়ে ভয়ংকর রূপ ভারতের রাজধানী দেখেছে। হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে দিল্লিতে। এই অবস্থায়ও শহরের সবচেয়ে বড় করোনা হাসপাতালের উল্টো দিকের স্টেডিয়ামেই হচ্ছিল আইপিএল। এর ফল মিলেছে দ্রুত। চারটি দলে করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় ৪ মে আইপিএল স্থগিতের ঘোষণাও এসেছে।

দেশে করোনার প্রকোপ যখন লাগামছাড়া, তখন জৈব সুরক্ষাবলয় সৃষ্টি করেও যে একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চালানো কঠিন হয়ে ওঠে, সেটা আইপিএল বুঝতে পারেনি। তাদের এই ভুল থেকে শিক্ষা নিচ্ছে পিএসএল কর্তৃপক্ষ। করোনার কারণে স্থগিত পিএসএল আবার আয়োজন করার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতকেই পছন্দ হচ্ছে তাদের।

আইপিএল নিয়ে সাফাই গেয়েই যাচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলী।

গত মৌসুমে আইপিএল প্রায় অসম্ভব এক কাজ করেছিল। করোনার প্রথম ধাক্কা বিশ্ব তখনো সামলে ওঠেনি। এই অবস্থায় বিশ্বের নানা প্রান্তের সব ক্রিকেটারকে ডেকে এনে আইপিএল আয়োজন করেছিল তারা। অবশ্য ঘরের মাঠে সেটা করতে পারেনি তারা। সংযুক্ত আরব আমিরাতে তিন ভেন্যুতে সফলভাবে ২০২০ আইপিএল আয়োজিত হয়েছিল। টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার পর কোনো খেলোয়াড় বা সংশ্লিষ্ট কোচিং স্টাফ বা কর্মকর্তাদের মধ্যে করোনা সংক্রমণের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এবার ঘরের মাঠে আইপিএল আয়োজন করতে গিয়েই বিপাকে পড়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। মুম্বাই, চেন্নাই, আহমেদাবাদ হয়ে দিল্লিতে যাওয়ার পরই ঝামেলাটা ঘটল। প্রথমে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দ্বীপ ভারিয়ের আক্রান্ত হলেন। এরপর চেন্নাই সুপার কিংসের বোলিং কোচ লক্ষ্মীপতি বালাজিসহ তিনজন আক্রান্ত হওয়ার খবর এল। এ দুই দলকে ছয় দিন কঠোর কোয়ারেন্টিনে রাখার প্রস্তাব দিয়েই আইপিএল চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। মঙ্গলবার প্রথমে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ঋদ্ধিমান সাহা ও দিল্লি ক্যাপিটালসের অমিত মিশ্রর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবরের পর সিদ্ধান্ত বদলাতে বাধ্য হয় আইপিএল কর্তৃপক্ষ। অনির্দিষ্টকালের জন্য আইপিএল স্থগিত করতে বাধ্য হয় বিসিসিআই।

ভারতীয় বোর্ডের ভুল থেকেই শিক্ষা নিতে চাইছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। ভারতের মতোই ঘরের মাঠে পাকিস্তান সুপার লিগ আয়োজন করেছিল পিসিবি। কিন্তু মার্চে মাত্র ১৪ ম্যাচ হওয়ার পরই করোনা ছয় খেলোয়াড়সহ সাতজনের সংক্রমিত হওয়ার ঘটনায় টুর্নামেন্ট স্থগিত করতে বাধ্য হয় তারা। জুনে টুর্নামেন্ট আবার আয়োজন করার পরিকল্পনা করেছিল পাকিস্তান। কিন্তু নিজ দেশে জৈব সুরক্ষাবলয় নিশ্ছিদ্র রাখা কত কঠিন, সেটা আগেই টের পেয়েছে। আইপিএলের ঘটনা আরও ভালোভাবে বুঝিয়ে দিয়েছে।

এই অবস্থায় টুর্নামেন্ট সংযুক্ত আরব আমিরাতে নেওয়ার চিন্তা করছে পিসিবি। স্থগিত হওয়ার আগেই আইপিএল ছেড়ে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ান লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা কয়েক দিন আগেই বলেছেন আইপিএলের এবারের জৈব সুরক্ষাবলয়ের চেয়ে আরব আমিরাতের জৈব সুরক্ষাবলয় ভালো ছিল। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সিদ্ধান্তটি দেশটির করোনা নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব থাকা সংস্থার ওপর নির্ভর করছে, ‘জাতীয় কমান্ড ও অপারেশন সেন্টার এই ঘোষণা দেবে। যদি এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে লিগ চালু করা যাবে, তাহলে আমরা করাচিকে জৈব সুরক্ষিত করব এবং সব ম্যাচ সেখানে খেলা হবে। যদি তারা করাচিতে ম্যাচ খেলার অনুমতি না দেয়, তাহলে আমরা ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে বসে আরব আমিরাতে টুর্নামেন্টের বাকিটা আয়োজনের ব্যাপারে কথা বলব।’

পিএসএলে আরও ২০ ম্যাচ বাকি আছে। গত মাসে এই ২০ ম্যাচ করাচিতেই আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। ১ জুন থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল পিএসএলের বাকি অংশের। ২০ জুন হওয়ার কথা ছিল ফাইনাল। কিন্তু টুর্নামেন্টের ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজিই সংযুক্ত আরব আমিরাতে টুর্নামেন্ট আয়োজনের পক্ষে। এদিকে পাকিস্তানে করোনা সংক্রমণও এর মধ্যে অনেক বেড়েছে। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর ঘটনা।

এই বিভাগের আরো খবর