শনিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
৮২

আমরা এমন কেন?

প্রকাশিত: ১১ মার্চ ২০২০  

এ বিষয়টি ফুটে উঠেছে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা প্রকাশের পর। আমরা সবসময় সুযোগের সৎ ব্যবহারে খুবই পটু। আগে পিছে না ভেবে নিজের লাভের জন্য ভালো হোক বা মন্দ হোক সুযোগের সৎ ব্যবহার করে ফেলি। অন্যান্য মনুষ্যত্বহীন বিষয়ের কথা বাদই দিলাম। সম্প্রতি সময়ে সবচেয়ে আলোচিত যে বিষয়টি মানুষকে কষ্ট দিচ্ছে সেটা হল মাস্ক, হ্যান্ডওয়াশসহ যাবতীয় সামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধি। এক শ্রেণীর অসাধু বা মুনাফালোভী ব্যক্তিরা মানুষের চাহিদাকে পুঁজি করে অতিরিক্ত লাভ করার নেশায় থাকে। অথচ উন্নত দেশগুলোতে দেশের সংকটকাল মুহূর্তে সবাই মিলে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেয়। আমাদের দেশের এইসব অসাধু মুনাফালোভীদের কারণে নিজেদের বাঙালি পরিচয় দিতে মাঝে মধ্যে লজ্জাবোধও চলে আসে।

এর আগে পেঁয়াজ ও লবন নিয়েও একই অবস্থা সৃষ্টি করেছিল মনুষ্যত্বহীন ব্যক্তিরা। সামনে আসছে রমজান এসময় হয়ত নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য নিয়ে মনুষ্যত্বহীনতার পরিচয় দিবে মানুষরুপি সেই পশুগুলো। রাসূল (সা.) বলেন, ‘কেউ যদি খাদ্য গুদামজাত করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে, আল্লাহ তাকে দুরারোগ্য ব্যাধি ও দারিদ্র্য দ্বারা শাস্তি দেন।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২২৩৮)

অন্য হাদিসে এসেছে, ‘যে ব্যক্তি (সংকট তৈরি করে) খাদ্যশস্য গুদামজাত করে সে অপরাধী।’ (মুসলিম শরিফ, হাদিস : ১৬০৫)। এ প্রসঙ্গে মহানবী (সা.) আরও বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি ৪০ দিনের খাবার মজুদ রাখে, সে আল্লাহ-প্রদত্ত নিরাপত্তা থেকে বেরিয়ে যায়।’ (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস : ২০৩৯৬)

অথচ বিভিন্ন মুসলিম দেশ বিশেষ করে আরব দেশগুলোতে রমজান মাসজুড়ে ব্যবসায়ীরা প্রতিযোগিতায় নামেন কে কত কম দামে জিনিসপত্র বিক্রি করতে পারেন। গোশত থেকে শুরু করে চাল, ময়দা, চিনি, তেল, দুধসহ যাবতীয় নিত্যপণ্যের দাম নেমে আসে অর্ধেকে। অনেক দেশে ভোজ্যতেলের দাম কমে নেমে আসে তিন ভাগের এক ভাগে। কোনো কোনো পণ্য ৯০ ভাগ পর্যন্ত ছাড়ে বিক্রি করা হয়। ব্যবায়ীদের নিজ উদ্যোগে দাম কমানো ছাড়াও অনেক দেশে সরকারিভাবে রমজান মাসে পণ্যের দাম কমিয়ে নির্ধারণ করে দেয়া হয়।

অপর দিকে ঠিক যেন উল্টো চিত্র বিরাজ করে বাংলাদেশে। কত বেশি লাভ করা যায়, কত বেশি হাতিয়ে নেয়া যায় সে জন্য রমজান মাসের আগমনের জন্য মুখিয়ে থাকেন ব্যবসায়ীরা। অনেকে অপেক্ষায় থাকেন রমজানে আঙুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হওয়ার জন্য। সরকার যতই পদক্ষেপ নিক আর ব্যবস্থা নিক মানুষরুপি ঐসব জানোয়ারদের মধ্যে যতক্ষণ না মনুষ্যত্ববোধ তৈরি হবে ততক্ষণ পর্যন্ত এভাবেই আমাদের ভুগতে হবে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস।

এই বিভাগের আরো খবর