রোববার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
৪২৮

নতুন ২০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত ; মৃত ৩

প্রকাশিত: ১৯ জুন ২০২০  

রিয়াদ হোসাইন  : মুন্সিগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরো ২০ জন ব্যক্তি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনা ‘পজিটিভ’ ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়ালো ১ হাজার ৭৭৬ জনে । একইদিন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪২ জন ও মারা গেছেন আরো ৩ জন।  

 

গত কাল শুক্রবার দুপুরে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড সোশ্যাল মেডিসিনের (নিপসম) ল্যাব থেকে পাঠানো প্রতিবেদনের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

 

নতুন সংক্রমিতদের মধ্যে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার ৭ জন, সিরাজদিখান উপজেলায় ৮জন ও লৌহজং উপজেলায় ৫ জন রয়েছেন। এছাড়া মৃতদের মধ্যে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সদর উপজেলার দুই ব্যক্তি ও করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার আগে শ্রীনগর উপজেলায়  এক ব্যক্তি মারা গেছেন।

 

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, গত ১৭ ও ১৮ জুন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড সোশ্যাল মেডিসিনে (নিপসম) পাঠানো নমুনার মধ্যে ২০৮  জনের রিপোর্ট এসেছে। এতে ২০ জনের করোনা পজিটিভ হওয়ার কথা জানানো হয়েছে। এদিকে, শুক্রবার ২৪৬ জনসহ জেলার মোট ৮ হাজার ২৯০ জনের নমুনা এ পাঠানো হয়। ইতোমধ্যে ৭ হাজার ৯৪৬ জনের নমুনার ফল পাওয়া গেছে। ফলাফলের অপেক্ষায় রয়েছেন আরো ৩৪৪ জন। 

 

এ পর্যন্ত সদর উপজেলায় ৭৫৭ জন, টংগিবাড়ী উপজেলায় ১৫৮ জন, সিরাজদিখান উপজেলায় ২৮৪ জন, লৌহজং উপজেলায় ২৪৩ জন, শ্রীনগর উপজেলায় ১৬৩ জন এবং গজারিয়া উপজেলায় ১৭১ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে।

 

এরমধ্যে সদর উপজেলায় ২২ জন এবং টংগিবাড়ী উপজেলায় ৮ জন , সিরাজদিখান উপজেলায় ৫ জন, শ্রীনগর উপজেলায় ২ জন ও লৌহজং উপজেলায় ৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যায়।

 

অন্যদিকে সিরাজদিখান উপজেলায় ২৩ জন, লৌহজং উপজেলায় ৯ জন, শ্রীনগর উপজেলায় ৪ জন ও গজারিয়া উপজেলায় ১০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এ নিয়ে মুন্সিগঞ্জ জেলায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৪৬২ জনে। 

 

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন আবুল কালাম আজাদ বলেন, গত কিছুদিনের তুলনায় আজ প্রাপ্ত ফলাফল সন্তোষজনক। প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী ১০ শতাংশ মানুষ করোনো ভাইরাসে  আক্রান্ত হয়েছেন। তবে, এখনই বলা যাচ্ছে না পরিস্থিতি স্বাভাবিকের দিকে ধাবিত হচ্ছে। মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পেলে সংক্রমিত হবার সংখ্যাও দিন দিন কমে আসবে। এ মুহূর্তে মানুষ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চললে আক্রান্ত হবার আশঙ্কা হ্রাস পাবে।

এই বিভাগের আরো খবর