শনিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
২৮০

পুলিশ করোন প্রতিহতে নিরবচ্ছিন্ন কাজ করছে

প্রকাশিত: ২ জুন ২০২০  

সালেহীন তুহিনঃ ইংরেজীতে একটি প্রবাদ বাক্য আছে ‘ইট ইজ ইজি টু ছে, বাট ডিফিকাল্ট টু ডু’ বাংলায় যার অভিধারিক রূপ ‘বলা সহজ কিন্তু করা কঠিন’। বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক প্রেক্ষাপটে এই বাক্যটি প্রতিনিয়তই ব্যবহৃত হচ্ছে। স্থান কাল পাত্র ভেদাভেদ নেই বলার সামর্থেই যেন ‘বোদ্ধা বনে যাওয়া’। কি প্রাসঙ্গিক বা অপ্রাসঙ্গিক বলে দিয়েই খালাস। অনুরূপ গতানুগতিক প্রবাহমান ধারার বৈসাদৃশ্য প্রতীয়মানে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সক্ষম হয়েছে বলে অনেকেরই অভিমত। অন্তত চলমান বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ জেলা পর্যায়ে ব্যপক বিস্তার প্রতিহতে পুলিশের উপর অর্পীত দায়ীত্ব সুচারূপে প্রতিপালিত হয়েছে বলে তাদের আরো অভিমত। 
    সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জেলায় করোণা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ কর্মকান্ডে প্রয়োজনীয় সর্বত্রই পুলিশ মাঠে থেকে এক কথায় হাতে-কলমে কর্মকান্ড পরিচালনা করছে। সকল প্রশাসনিক বলয়ের মধ্যে পুলিশই মূলত পরিস্থিতি মোতাবেক ‘নিয়ন্ত্রণারোপের’ কার্যক্রম পরিচালনা করে। অপরাপর সরকারি দপ্তর গুলোকে অবশ্যই রোদ-বৃর্ষ্টি সহ নানা প্রতিকুল এবং প্রতিবন্ধকতাপূর্ন পরিবেশে কাজ করতে হয় না। কিন্তু পুলিশ সমাবস্থায় অনন্যেপায়, যতই বন্ধুর পথ পরিক্রমা কিংবা সমস্যা-সংকুল পরিস্থিতিই উদ্ভব হোক না কেন তাদের পিছু হাটার কোন সুযোগই নেই। স্বীয় কিংবা অর্পীত দায়ীত্ব যথার্থ রীতিনীতি অনুসৃত পূর্বক সুষ্টু পরিসমাপ্তির কোন অন্যথা নেই। জেলায় করোণা সংক্রমণ অবস্থা নিঃসন্দেহে উদ্বেগজনক। প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে নতুন নতুন পজেটিভ শনাক্তের সংখ্যা। জেলার উপ-সচিব পদ মর্যাদাসম্পন্ন উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ সহ অনেক কর্মকর্তাই করোণা সংক্রমিতের শিকার হয়েছেন। তন্মধ্যে খোদ জেলা প্রশাসকই সংক্রমিত। উদ্ভ‚ত পরিস্থিতিতেও পুলিশকে যথাযথ দায়ীত্ব প্রতিপালনে মাঠে-ময়দানে অবস্থান সুসংহত রাখতে হয়েছে। সারা বিশ্বই করোণা ভাইরাসে কুপোকাত। অন্যাণ্য উন্নত-সমৃদ্ধ দেশগুলোর পুলিশ করোণাকালীন যেসকল সুরক্ষা ব্যবস্থা নিশ্চিত পূর্বক কাজ করে। তার ছিটে-ফোটাও জেলা পুলিশের ক্ষেত্রে বিদ্যমান নেই। তারপরেও কোভিড-১৯ প্রতিরোধে কর্মপন্থায় অগ্রগণ্য ভ‚মিকা গ্রহনে পিছপা হয়নি পুলিশ। সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে দায়ীত্ব প্রতিপালনরত অবস্থায় নিজেরা সংক্রমিত হয়েও জেলাবাসীর সর্বাত্মক সুরক্ষা প্রতিবিধানে ‘জীবনের ঝুকি’ গ্রহন পূর্বক দায়ীত্ব পালন করেছেন। 
    এসকল বিষয়ে, মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন পিপিএম দৈনিক মুন্সীগঞ্জের খবরকে বলেন, জেলায় এ পর্যন্ত ২৭ জন পুলিশ করোণায় আক্রান্ত হয়েছেন। অন্মাধ্যে ১০ জন সংক্রমণ মুক্ত পূর্বক সুস্থ্য হয়েছেন। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে পুলিশ নিরবচ্ছিন্ন কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া সরকার বা উধ্বর্তন মহল থেকে যে কোন নির্দেশনা প্রদত্ত হলে তা প্রতিপালনে সদা প্রস্তুত মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ বলে তিনি আরো জানান। 
 

এই বিভাগের আরো খবর