শনিবার   ২৯ জানুয়ারি ২০২২

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
৩৩

মালখানগরে নৌকার জয়ে হ্যাট্রিক করলেন সানজিদা আক্তার 

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০২১  

মো. আহসানুল ইসলাম আমিন : 

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার মালখানগর ইউনিয়নে নৌকার জয়ে হ্যাট্রিক করলেন সানজিদা আক্তার। গত ২৬ ডিসেম্বর সিরাজদিখান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে স্থানীয় সরকার ইউপি নির্বাচনের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়, উপজেলার ১১নং মালখানগর ইউনিয়নে টানা তৃতীয়বারের মত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন সানজিদা আক্তার  বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত এ প্রার্থী তার ৫ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের পরাজিত করে তৃতীয়বারের মত নির্বাচিত হয়েছেন। 

গত রবিবার অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে সানজিদা আক্তার পেয়েছেন ৩৬০৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীক নিয়ে তসলিম উদ্দিন শেখ পেয়েছেন ৩১৬৬ ভোট, মোঃ আনিসুর রহমান (আনাছ মৃধা) স্বতন্ত্র প্রার্থী ( আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৯৬৯ ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী হাত পাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪৫৮ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ মামুন আটো রিক্সা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪১৬ ভোট, মোঃ বিল্লাল খান আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৬২ ভোট । চতুর্থ ধাপে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয়বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে হাট্টিক করলেন সানজিদা আক্তার।তিনি ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হয়ে প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং জেলা সর্বপ্রথম নির্বাচিত মহিলা চেয়ারম্যান এর রেকড করেন। ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে দ্বিতীয় বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ক্লিন ইমেজের মানুষ ও তৃণমূল পর্যায়ে ব্যাপক জনপ্রিয় এই চেয়ারম্যানকে আর পেছন ফিরে দেখতে হয়নি। গত ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সানজিদা আক্তার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী ৫ প্রার্থীকে পরাজিত করে তৃতীয়বারের মত নির্বাচিত হয়েছেন। জেলার একমাত্র মহিলা চেয়ারম্যান সানজিদা আক্তার পরপর তিনবার নির্বাচিত হয়ে রেকড গড়েন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সানজিদা আক্তার  বলেন, মালখানগর ইউনিয়ন বাসীর সাথে আমার পরিবারের আত্মার সম্পর্ক, আমার শ্বশুর মরহুম আব্দুস সামাদ দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে মালখানগর ইউনিয়নের রিলিফ কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবে ১৯৭৪ সাল পযর্ন্ত দায়িত্ব পালন করেন, আমার স্বামী হাজী মহিউদ্দিন আহমেদ ১৯৮৪ সাল থেকে ২০০৩ সাল পযর্ন্ত পরপর ৫বার মালখানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন এই ইউনিয়নের প্রতিটি মানুষের সাথে আমাদের সম্পর্ক যুগের পর যুগ ধরে। বিগত ২টি নির্বাচনে তাঁরা আমাকে ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছে। চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন কালে কোনো প্রকার দুর্নীতি বা স্বজনপ্রতি,ক্ষমতার অপব্যবহার করিনি। সদ্য অনুষ্ঠিত নির্বাচনে দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাকে আওয়ামীলীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন দেন আমি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছি, ইউনিয়নবাসী আমাকে ভোট দিয়ে তৃতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত করায় আমি ইউনিয়নবাসীর কাছে চির কৃতজ্ঞ। আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে ইউনিয়নে সেবা নিতে আসা সকল শ্রেণির মানুষদের যার জন্য যতটুকু করার ছিলো তাদের জন্য সাধ্যমতো করার চেস্টা করেছি। শুধু আমি নই আমার পরিষদের সকলকে নিয়ে পরিষদকে একটি সেবামূলক ও হয়রানী মুক্ত প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে চেস্টা করেছি। আগামীতেও আমার এই ধারা অব্যাহত রাখার চেস্টা করবো। সকল ভালো কাজে আমার পরিষদের সকল সদস্যসহ প্রশাসন ও ইউনিয়নবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি। কারণ একক ভাবে কোন কিছুই করা সম্ভব নয়। তাই সুন্দর ভাবে এই ইউনিয়নকে পরিচালনা করতে ও পরিষদের সকলকে নিয়ে আগামীতে একসঙ্গে পথ চলতে আমি পুরো ইউনিয়নবাসীসহ সকলের কাছে সার্বিক সহযোগিতা প্রার্থনা করছি। ইনশাআল্লাহ্‌ সবাইকে সাথে নিয়ে ইউনিয়নের চলমান উন্নয়নের ধারাকে অব্যহত রেখে এই ইউনিয়কে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসাবে গড়ে তুলবো। উল্লেখ তাঁর স্বামী হাজী মহিউদ্দিন আহমেদ পরপর ৫বার মালখানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন, এবং পরপর ৩ বার নির্বাচিত সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

এই বিভাগের আরো খবর