সোমবার   ১৮ অক্টোবর ২০২১

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
২৯

যাত্রীবেশে যমদূত" চালককে হত্যা করে অটোরিকশা চুরি,ছিনতাই!

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১  

সোহাগ চোকদার-

শেষ বিকেলের ঘটনা, দুপুরবেলার খাবার খেয়ে এসে মেলা যাত্রী টেনেছে অভাগা মায়ের বড় ছেলে ফয়সাল। এক গ্লাস বরফ সরবত খেয়ে অটোরিকশা চালিয়ে সোজা মুক্তারপুর সেতুর মাঝামাঝি এসে ব্রেক করে একটূ হাওয়া বাতাস খাচ্ছিলো। পশ্চিম দিগন্তে গোধূলির মনকাড়া লাল বাসন্তী মেশালো চমৎকার রঙের মেলা বিমুগ্ধ করে। সূর্যটা অস্তাচলে হারিয়ে যাচ্ছে। কি অপূর্ব সুন্দর দৃশ্য। সেতুর উপড়ে হাজার হাজার দর্শনার্থীদের ভীর। উঠতি বয়সের টিনেজারই সংখ্যায় বেশী। গোটা ত্রিশ চল্লিশের মতো হবে মোটরসাইকেল। দু চারটা প্রাইভেট কারও দেখা যায়, অটোরিকশাও আছে বেশ কয়েকটি। সেতুতে অবস্থানকারী বেশীরভাগের দৃষ্টি আকর্ষণ গোধূলি বেলায়, সূর্যাস্তের দৃশ্যপটে। ফয়সাল শিশু বয়সে বাবাকে হারিয়েছে। ছোট ভাইয়ের জন্মের কিছুদিন পরেই ওর বাবা স্টোক এ মারা যান। সেই থেকে পরের বাড়ীতে ঝিয়ের কাজ, ইউনিয়ন পরিষদের এলজিইডির তত্ত্বাবধানের "খাদ্যের বিনিময়ে কাজের কর্মসূচি"র একজন পরিচ্ছন্ন কর্মী হিসেবে কাজ করে অনেক কষ্টে দুটো ছেলেকে বড় করে তুলছেন ফয়সালের মা সখিনা বেগম। এখন ওর বয়স ১৬/১৭ হবে হয়তো। এখনি সংসারী। মা বলেছেন বাবা বছরটা গেলে তোকে বিয়ে করিয়ে দেবো। ফয়সাল গোধূলির রঙের পানে  চেয়ে চেয়ে বড় বড় নিঃশ্বাস ছাড়ে আর মা ভাইয়ের কথা ভাবছে। হঠাৎ পেছন থেকে পোষাকে আশাকে স্মার্ট  একজন যুবক এসে এই অটো বলে ডাকদিতেই ফয়সালের ভাবনা ভাঙে। কি ভাই? আমরা একটু ঘুরবো ?কোথায়? এইতো আশেপাশেই। কতোদিতে হবে। ভাই আপনারা ইনসাফ করে দিয়েন একটা। বলতেই চারজন ফয়সালের অটোরিকশায় চেপে বসে ততক্ষণে সূর্যাস্ত হয়েছে। সেতু থেকে নেমেই ফয়সাল ছুটে চললো যাত্রীদের দেখানো পথে পথে। চারজন যাত্রী নিয়ে ফয়সালকে ওর পরিচিত একাধিক অটোরিকশা চালক ওকে দেখেছে। 

রাত ১০ টা১২ টা! গভীর রাত ফয়সাল বাড়ী ফিরছে না! মায়ের চোখে ঘুম নেই একদন্ড। ছেলে আসলে ছেলেকে খাইয়ে তবেই মা খাবেন। রাতের আঁধার ঠেলে ছোট ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে মা এ বাড়ী ও বাড়ী গিয়ে ছেলের বন্ধু বান্ধব ও পরিচিতজনদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ফয়সালের সন্ধান করছেন!! কেউই বলতে পারেনা। এভাবে সারাদিন পেড়িয়ে আবার সন্ধ্যা, রাত! দুই দিন হয়ে যায় মায়ের আদরের ছেলে ফয়সাল গেলো কোথায়, মা কেঁদে কেঁদে চোঁখ ফুলিয়ে ফেলেছে। দ্বারে দ্বারে ঘুরে পা ফুলে গেছে। নাহ্  ফয়সালের কোনোও খোঁজ মিলছে না। হঠাৎ কেউ একজন এসে খবর দিলো মুক্তারপুর ফেরিঘাট পেড়িয়ে মুন্সীগঞ্জ লঞ্চঘাটের কাছাকাছি একটি লাশ ভেসে উঠেছে!! ফয়সালকে চেনে এমন দু একজন বললো এটা ফয়সালের লাশ!! অভাগিনী মা সনাক্ত করেন এটা তার আদরের বড় সন্তান ফয়সাল। মা জ্ঞান হারান। শরীরে অনেক  আঘাতের চিহ্ন । ফয়সালকে হত্যা করে কিস্তির টাকা তুলে মায়ের কিনে দেয়া অটোরিকশাটা নিয়ে পালিয়েছে যাত্রীবেশী যমদূত। গল্পটি একটি সত্যি ঘটনা। আমার অতি পরিচিত ও প্রতিবেশী ছিলো ফয়সাল। ওর মা আমার বৃদ্ধা দাদীর সেবাযত্ম করেছে বেশ কিছু দিন। এমন ঘটনা একটি নয় বহু। ঐ ঘটনার পরে চুরি যায় বিদেশ ফেরত আমার বন্ধু নাসির মৃধার অটোরিকশা। কিছুদিন পরেই চুরি হয় ওর ছোটভাই জসিম মৃধার অটোরিকশা। বেতকা চৌরাস্তা থেকে মতির অটোতে চরে চারজন যাত্রী, সোনারং ব্রিজের ঢাল ছেড়ে গ্রামীন ব্যাংক এর কাছে যেতেই অস্ত্র ঠেকিয়ে ওর নতুন অটোরিকশাটি নিয়ে যায় যাত্রীবেশে ছিনতাইকারী। অতি সম্প্রতি আব্দুল্লাপুর চৌরাস্তার গেরেজ মালিক রাজু মন্ডলের ড্রাইভার মামুনকে পেছন থেকে ছূড়ি দিয়ে গলাকেটে সড়কের উপর ফেলে রেখে দিয়ে অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায় যাত্রীবেশে ছিনতাইকারী!! এক সপ্তাহ না ঘরতেই শুনি বাড়ীর সামন থেকে দ্বিতীয় বার জসিম মৃধার অটোরিকশাটি তার চোখের সামন দিয়েই দ্রুতবেগে চালিয়ে নিয়ে যায় অচেনা ছিনতাইকারী! এমন বহু অটোরিকশা ছিনতাই ও চালক হত্যার ঘটনা আমরা দেখেছি। এইতো গত ৪ দিন আগে অটোরিকশা সহ খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না, আব্দুল্লাপুর বাজার ঋষিপাড়ার বাসিন্দা  জয়রাম দাসের ছেলে নয়ন দাসকে। দুদিন আগে নদীর ওপারে নারায়ণগঞ্জ এলাকার আলীরটেক ,রাধানগরের আশপাশের এক ধনিঞ্চা খেত থেকে নয়ন দাসের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়!! ওর অটোতে যাত্রীবেশ চড়েছিল বরিশালের দুই কিশোর, যারা আব্দুল্লাপুর বাজার সংলগ্ন এলাকায় এক বাড়ীতে ভাড়া থাকতো। গত কয়েক বছরে বহু অটোরিকশা চুরি, ছিনতাই ও একাধিক অটোরিকশা চালক হত্যার ঘটনা আমাদের মুন্সীগঞ্জে ঘটেছে। এ বিষয়ে প্রশাসন কঠোর ব্যবস্থা নেবেন বলে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো প্রত্যাশা করেন। (ছবি : ধনিঞ্চা খেতে অটোরিকশা চালক নয়ন দাসের মৃতদেহ, পলাতক দুই খুনী) অটোরিকশার ছবিটে প্রচ্ছদ হিসেবে ব্যবহার করার জন্যে)

এই বিভাগের আরো খবর