বুধবার   ১৬ জুন ২০২১

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
৫৯

লাশ মিলল কবির, মিলল না অনেক কিছুই

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২১  

নিজস্ব প্রতিবেদক-

মিয়ানমারের কবি খেত থি। ৪৫ বছর বয়সী এই কবি তাঁর ফেসবুক পেজে লিখেছিলেন, ‘তারা মাথায় গুলি করতে পারে, কিন্তু তারা জানে না বিপ্লব হৃদয়ে থাকে।’

নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে গত ১ ফেব্রুয়ারি ক্ষমতা দখলকারী জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এ কবিতা লিখেছিলেন তিনি। কিন্তু সেই কবিতাই তাঁর জীবনকে থমকে দিয়েছে। মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী তাঁকে ধরে নিয়ে নির্মম নির্যাতন চালায়। তারপরও পরিবার ভেবেছিল হয়তো তাঁকে ফিরে পাবে। ফিরে পেয়েছে ঠিকই, তবে লাশ। আর সেই নির্জীব দেহের ভেতরের অনেক অঙ্গই ছিল না।

খেত থির স্ত্রী চাও সু বলেন, শনিবার তাঁদের দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে তুলে নিয়ে যায় সশস্ত্র বাহিনী ও পুলিশ। সাগাইং অঞ্চলের শুয়েবো শহরে ছিল সেই কেন্দ্র।

সড়কপথে ১০০ কিলোমিটার দূরে সাগাইং অঞ্চলের সবচেয়ে বড় শহর মনিওয়াতে থাকেন চাও সু। তিনি বিবিসি বার্মিজকে বলেন, ‘আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। তাঁকেও করা হয়েছিল। তারা বলেছিল, এ সেন্টারেই তাঁকে (খেত থি) রাখা হয়েছে। কিন্তু সে আর ফিরে এল না, এল তাঁর দেহ।’

চাও সু আরও বলেন, ‘তারা আমাকে সকালে ফোন করে মনিওয়াতে হাসপাতালে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে বলেন। আমি ভেবেছিলাম, হয়তো তাঁর হাত ভেঙে দেওয়া হয়েছে বা অন্য কিছু...কিন্তু আমি সেখানে গিয়ে দেখলাম, সে মর্গে আর তার শরীরের ভেতরের সব অঙ্গ বের করে নেওয়া হয়েছে।’

চাও সুকে হাসপাতালে বলা হয়েছিল, তাঁর স্বামীর হৃদ্‌যন্ত্রে সমস্যা হয়েছিল। কিন্তু মৃত্যুসনদ পড়ার আর তিনি প্রয়োজন মনে করেননি। কারণ, তিনি জানেন, সেখানে যা লেখা আছে, তা আদৌ সত্য নয়।

তবে রয়টার্স এ ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনো মন্তব্য নিতে পারেনি। সামরিক বাহিনীর মুখপাত্রের কাছেও এ বিষয়ে জানতে চেয়েছিল রয়টার্স। তবে কোনো জবাব আসেনি।

চাও সু বলেন, সেনাবাহিনীর পরিকল্পনা ছিল খেত থিকে কবর দিয়ে দেওয়ার। কিন্তু তিনি স্বামীর লাশ ফেরত দিতে অনুরোধ করেন। তিনি জানেন না, কীভাবে তাঁর স্বামীর দেহের ভেতরের অঙ্গগুলো সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

দ্য অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনারস জানিয়েছে জিজ্ঞাসাবাদের নামে খেত থিকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। তাদের হিসাবে, এখন পর্যন্ত ৭৮০ জন নিহত হয়েছে। দ্য অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনারস একটি স্বাধীন অলাভজনক সংস্থা। মিয়ানমারের রাজনৈতিক বন্দীদের যারা নির্বাসনে আছেন, তাঁরা এটি প্রতিষ্ঠা করেছেন।

জান্তাবিরোধী বিক্ষোভের মধ্যে এখন পর্যন্ত অন্তত তিনজন কবি নিহত হয়েছেন। খেত থির ৩৯ বছর বয়সী এক বন্ধু ক জা উই গত মার্চের শুরুর দিকে বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান।

খেত থি ছিলেন একজন প্রকৌশলী। কবিতা লিখবেন বলে ২০১২ সালে চাকরি ছেড়ে দিয়েছিলেন। তিনি আইসক্রিম ও কেক বানিয়ে বিক্রি করে সংসারের খরচ জোগাতেন।

সামরিক অভ্যুত্থানের দুই সপ্তাহ পর খেত থি লিখেছিলেন, ‘আমি কোনো নায়ক হতে চাই না। আমি শহীদও হতে চাই না। আমি দুর্বল চিত্তেরও হতে চাই না, আবার বোকাও হতে চাই না।’ তিনি আরও লিখেছিলেন, ‘আমি অন্যায়কেও সমর্থন করতে চাই না। আমি যদি এক মিনিটও বেঁচে থাকার সুযোগ পাই, সে সময়ে আমার বিবেককে পরিষ্কার রাখতে চাইব।’