বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
২০

শখের বশে সুখের নীড়ে ছাদ বাগান’

প্রকাশিত: ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১  

তুষার আহাম্মেদ - 

প্রকৃতি ও গাছপালা প্রত্যেকটা মানুষকে কাছে টানে। প্রকৃতিতে সবুজের ছোঁয়া মানুষের মন কে বিগলিত করে দেয়। সে কারণেই হয়তো প্রতিটি মানুষ প্রকৃতি, গাছপালা, ফুল-ফলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে ভালোবাসে। এর মধ্যে কিছু মানুষের প্রকৃতির প্রতি দুর্বলতা যেন ভিন্ন মাত্রায়। প্রকৃতির প্রেমে মিশে যাওয়া সেইসব মানুষগুলো তাদের নিজের শখ মিটাতে বিভিন্ন জাতের গাছ লাগিয়ে তা লালন পালন করেন। নিজের শ্রম,ঘাম ও কষ্টে সন্তানের মত করে গাছের যত্ন নিয়ে প্রকৃতিকে সাজিয়ে তোলা, এটি সত্যিই প্রকৃত একজন গাছ প্রেমী মানুষের বৈশিষ্ট্য।একটা সময় ছিল যখন জেলা শহরে স্বল্পসংখ্যক বাড়ির মালিক ছাদে বাগান করতেন। বর্তমানে জেলা শহর সহ উপজেলার শহর শহরতলী ও মফস্বল গ্রামের ছাদ গুলো  ছেয়ে গেছে  ছোট ছোট বাগান।বিষয়টিকে খুব ইতিবাচকভাবে দেখছে সরকারের কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ। তারা মনে করছে, বাড়ির ছাদের এ বাগান শুধু শখের বিষয় নয়, পরিবেশ রক্ষায়ও রয়েছে এর বড় ভূমিকা। ছাদ বাগানের মাধ্যমে গ্রিনহাউস প্রতিক্রিয়ার কবল থেকে রক্ষা পাওয়া যায়, পরিবেশ দূষণমুক্ত থাকে, বায়োডাইভারসিটি সংরক্ষণ করা যায়। এ ছাড়া তাজা শাকসবজি, ফলমূলের চাহিদাও মেটে। এসব কারণে বাড়ির ছাদে বাগান বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। অবশ্য ছাদের ওপর যেসব বাগান দেখা যায় তার অধিকাংশই অপরিকল্পিত। পরিকল্পিতভাবে বাগান করা হলে এটি প্রাত্যহিক শাকসবজির চাহিদা মিটিয়ে পরিবেশ রক্ষায়ও দারুণ ভূমিকা রাখবে। মুন্সীগঞ্জ পৌর ৬ নং  ওয়ার্ডের রুহিতপুর মাদবর বাড়ীর গৃহবধু তৌহিদা সুলতানা  নিজ বাসার ছোট্ট একটি ছাদে তিনি প্রায় বছর দু’য়েক হলো বাগান শুরু করেছেন। সরেজমিনে তৌহিদার  ওই ছাদ বাগানে যেতেই সবুজের সমারোহ দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। এ যেন এক অন্যরকম অনুভূতি যা চোখে না দেখলে বিশ্বাস হবার নয়। ছাদের যেদিকে চোখ যায় শুধু গাছ আর গাছ। ফুলে ফুলে ছেঁয়ে গেছে ছাদের সাজানো বাগান। ছাদের পাশাপাশি বাড়ির চারপাশের বেলকোনিতেও ঝুলছে ঝুলন লতা। ফুটেছে নানান রঙের ফুল। তার এই বাগানে রয়েছে গোলাপ, গাঁদা, কুন্দ জুঁই, এরোমেটিক জুঁই, বেলি ফুল, সোর্ড লিলি, জল গোলাপ, ওয়াটার পপি, রোজ ক্যাক্টাস, দোপাটি, সাদা ও লাল হাসনা হেনা, কাঞ্চন, সোনালু, করবী, কাঁটা মেহেদী, জ্যাট্রফা, জিনিয়া, কাঠ গোলাপ, চন্দ্রপ্রভা, টেকোমা, টগর, কলাবতীসহ ৩০ জাতের ফুল।  আরো আছে, পেঁয়ারা, আম, লাল আমলকী, মালটা, তেঁতুল, লিচু, আনার, লেবুসহ ১০ টি বিভিন্ন জাতের ফল গাছ। তৌহিদা দৈনিক মুন্সীগঞ্জের খবকে বলেন জানান, প্রত্যেকটা গাছ সংগ্রহের পেছনে রয়েছে অনেক ত্যাগ, কষ্ট আর শ্রম। যখন যেখানেই যাই সেখানেই পছন্দের গাছটি খুজি এ পর্যন্ত তিনি তার বাগানে প্রায় ১ লক্ষ টাকা খরচ করেছেন। এছাড়া অনলাইনের মাধ্যমেও তিনি গাছ কিনে থাকেন।একজন কৃষি কর্মকর্তা জানালেন, কেউ যদি ছাদে বাগান করতে চান, তাহলে তাকে সহায়তা করবে উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর। শুধু ছাদ নয়, বাড়ির বারান্দা, বেলকনিসহ যে অংশ খালি পড়ে আছে তাতেই লাগানো যাবে গাছ। এ জন্য দরকার সঠিক নিয়ম অনুসরণ।

এই বিভাগের আরো খবর