বুধবার   ১৬ জুন ২০২১

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
১০২

সিডলেস লেবু চাষে ভাগ্য বদল

প্রকাশিত: ৭ মে ২০২১  

আপন সরদার-

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অনেক জাতের লেবু চাষ হয়েছে। এরমধ্যে কাগজি লেবু, পাতি লেবু,এলাচি লেবু, বাতাবি লেবু ও হাইব্রিড জাতের সিডলেস (বীজহীন) লেবু উল্লেখযোগ্য। তবে ফলন ও দাম বিবেচনায় টঙ্গিবাড়ী উপজেলায় সিডলেস লেবুর আবাদ দিন দিন ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। লেবুতে লাভ বেশি হওয়ায় কৃষক অন্য আবাদ ছেড়ে এ লেবু চাষে ঝুঁকছেন। সিডলেস লেবু চাষে এক বছরের আয় দিয়েই ব্যয় উঠে যাওয়ায়, দ্বিতীয় বছর থেকে লাভের পরিমাণ বাড়তে থাকে। দ্বিতীয় বছরে লাভের টাকা গুনছেন এখন অনেক লেবু চাষি। তবে চলতি রমজানে চাষিরা লেবু বিক্রি করে এবছরই হাকিয়ে নিয়েছেন উচ্চ মূল্য। 

লেবু চাষিরা জানান, কলম কাটা চারা কিনা, জমি তৈরী, শ্রমিকের মজুরিসহ প্রথম বছরে তার খরচ হয় প্রায় ১০ লক্ষ টাকা। এক বছর যেতে না যেতেই ফলন আসা শুরু হয়। প্রথম বছরেই তার খরচ উঠে যাওয়ায় এখন শুরু  হয়েছে লাভের পালা।লৌহজং কলমা এলাকার লেবু চাষি মোস্তফা মোড়ল , কবির শেখসহ আরো অনেকেই এখন লেবু চাষে ঝুঁকেছেন। এ বছর লেবুর দাম ভালো থাকায় বেশ লাভে লেবু বিক্রি হচ্ছে। এমন একজন লেবু চাষী হলেন টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাঁচগাও ইউনিয়নের গারুরগাঁও এলাকার মনি মাষ্টার। তিনি এবছর তিনি লেবুতে অন্যান্য বছরের তুলনায় অধিক পরিমান অর্থ আয় করেছেন লেবু বিক্রি করে।


সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে উঁচু ও মাঝারি উঁচু জমিতে বেলে- দোআঁশ মাটিতে লেবু চাষ করে কৃষকরা আর্থিক ভাবে লাভবান হচ্ছেন। খরচের তুলনায় কয়েক গুণ লাভ পাওয়ায় এ ফসল চাষে কৃষকদের আগ্রহ ক্রমেই বাড়ছে। ফলে উপজেলা জুড়ে গড়ে উঠেছে অসংখ্য লেবুর ছোট বড় বাগান। বাগানে উৎপাদিক লেবু স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে অন্য জেলা-উপজেলায় সরবরাহ করা হচ্ছে। 

লেবু চাষি শফি শেখ জানান, লেবুর বাগান সাধারণত বাড়ির আশেপাশে থাকায় বাগান পরিচর্যায় স্ত্রী ও সন্তানরা সহযোগিতা করার সুযোগ পায়, ফলে শ্রমিক ব্যয় কম হয়। তিনি আরো জানান, লেবু বাগানের আয় দিয়েই তাদের সংসারের সব খরচ চলে। লেবু চাষ করে অনেকেই আজ স্বাবলম্বী হয়েছেন। 

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ বলছে, সারা বছর ফলন দেওয়া অধিক ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ প্রচুর রস ও সু Ñ ঘ্রানযুক্ত হাইব্রিড জাতের এ বীজ বিহীন (সিডলেস) লেবুর ব্যাপক চাহিদা থাকায় ও দাম ভালো পাওয়ায় লেবু চাষিরা আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। 
 

এই বিভাগের আরো খবর