রোববার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

সর্বশেষ
শ্রীনগরে আর্থিক কষ্টে মৃৎশিল্পীরা সিরাজদিখানে হাজারো মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে চলছে দোয়া ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় ফিরছে মানুষ উৎসবানন্দে নিঃশঙ্ক চিত্ত জেলার সর্ববৃহৎ বালিগাঁও বাজারে মানুষের উপচে পরা ভির মে পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হতে পারে ৫০ হাজার মানুষ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত মুন্সীগঞ্জে চঙ্গ তৈরি করার কারনে পুরো একটি গ্রামের নাম পরিবর্তন কোভিড-১৯ মোকাবেলা চ্যালেঞ্জিং, তবে অসম্ভব নয় - মোঃ শফিকুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিচ্ছেন সংবাদকর্মীরাঃ মৃনাল কান্তি দাস প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতীয়মানের এখনই সুযােগঃআবু বকর সিদ্দিক শ্রীনগরে নার্সারীতে বাহারী আমের বাম্পার ফলন বসল পদ্মা সেতুর ২৯তম স্প্যানঃ দৃশ্যমান ৪ হাজার ৩৫০ মিটার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে যে সকল গণমাধ্যমকর্মীরা.. জেলার ৭৪টি হিমাগার ৪০ ভাগ ফাঁকা-৮০০ কোটি টাকা লোকসানের শঙ্কা ধেয়ে আসছে কালবৈশাখী ঝড় মুন্সীগঞ্জে বর্ষা মৌসুম সামনে রেখে চলছে চাঁই তৈরীর ধুম ২ মিনিটেই মারা যাবে করোনা ভাইরাস নজরদারি বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছেঃ পৌর মেয়র বিপ্লব মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কঠোর নির্দেশনা ৯৮ সালে প্রলয়ংকারী বন্যা মোকাবেলার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেনঃমহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রতিদিন জীবানু নাশক পনি ছিটান অব্যাহত গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মারা যাওয়া সবাই ঢাকার আড়িয়ল বিলের মিষ্টি কুমড়া সবচেয়ে সেরা জেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক ফাঁকা মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগসহ প্রশাসনের নানা আয়োজন মধুচাষে লোকসান টঙ্গীবাড়ীতে ১০০ ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি প্রদান টিসিবি`র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না
২১৪

৭৮ বছরের ঐতিহ্য সমৃদ্ধ কে.কে. গভঃ ইনস্টিটিউশন

প্রকাশিত: ২২ মে ২০২০  

মুন্সীগঞ্জের খবর ডেস্কঃ  মুন্সীগঞ্জ জেলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কে.কে.গভ: ইনস্টিটিউ একটি মাধ্যমিক বালক উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৪২ সালে।
ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুরের কৃতি সন্তান আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরী। বিদ্যালয়টির নামকরণ করা হয় বিক্রমপূরী সাহেবের চাচা মরহুম কাজী কমরউদ্দিন সাহেবের নাম অনুসারে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই বিদ্যালয়টি মুন্সিগঞ্জ জেলার অন্যতম সেরা  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৬৯ সালে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ করা হয়। শিক্ষা ছাড়াও খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক কমর্কান্ড, সহশিক্ষা কাযর্ক্রমে এই বিদ্যালয়টি মুন্সীগঞ্জ জেলার শীর্ষ  স্থান দখল করে আছে। বিদ্যালয়টি মুন্সীগঞ্জ সদরের প্রাণ কেন্দ্রে একটি মনোরম পরিবেশে অবস্থিত।
শুরুতে শুধুমাত্র ডে-শিফটে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চললেও ২০০৮ সাল থেকে মর্নিং-শিফট সহ দুইটি শিফটে কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। বিদ্যালয়টিতে ৬ষ্ঠ হতে ১০ম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান করা হয়। রয়েছে তিনটি বিভাগ- বিজ্ঞান, মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা। বর্তমানে বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা ১ হাজার ৪৫০ জন। শিক্ষক রয়েছেন ৫০ জন। বিদ্যালয়টিতে রয়েছে ৪টি দ্বিতল ভবন। রয়েছে একটি বিশাল খেলার মাঠ, একটি শহিদ মিনার। আছে ১০ হাজার পুস্তকসমৃদ্ধ ১টি আধুনিক লাইব্রেরী, ২টি কম্পিউটার ল্যাব, ১টি কমনরুম, ১টি ছাত্রাবাস সহ শিক্ষার আধুনিক সুযোগ সুবিধা।

এই বিভাগের আরো খবর