রোববার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

মুন্সীগঞ্জের দৃষ্টি নন্দিত মসজিদ-বর্ষন মোহাম্মদ

পানাম জোড়ার দেউল জামে মসজিদ

এই মসজিদ টি আউটশাহী ইউনিয়নের আউটশাহী গ্রামের কবরস্থানের ভিতরে অবস্থিত । এটি ধারনা করা হয় মুঘল আমলের মসজিদ । এখানে ছিল হিন্দু জমিদারদের প্রভাব প্রতিপত্তি , তাই মুসলিম সংখ্যা ছিল অনেক কম । এই মসজিদে ১০ জন জামাত করে নামাজ পরা যেত ।

দিল্লির সম্রাট আওরঙ্গজেব । যাকে সবাই বাদশাহ আলমগীর হিসেবে চিনেন। তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন সময় মসজিদ, পাকাপুল,দুর্গ নির্মাণ করেছে। এসব ইমারত গুলোর মধ্যে মুন্সীগঞ্জ জেলার পাথরঘাটা মসজিদ একটি। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপ জেলার পাথরঘাটা একটি জনবহুল ও ব্যস্ত্রতম গ্রাম।রাজধানী ঢাকার খুব কাছে সিরাজদিখানের পাথরঘাটা গ্রামটি। বর্তমান ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের পাশে কুচিয়া মোড়া এলাকার খুব নিকটে পাথরঘাটা মসজিদটি। মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার পাথরঘাটা মসজিদের নির্মাতা বাদশাহ আওরঙ্গজেবের সভাসদ বা মন্ত্রী আনোয়ার । মসজিদটির নির্মান কাল ১১০২ হিজরি সন।পাথরঘাটা মোগল মসজিদটি উত্তর-দক্ষিণে ৩৪ ফুট। পূর্বে-পশ্চিমে ২০ ফুট। ছাদে মোগল ডিজাইনে ৩ টি গম্বুজ রয়েছে। হিজরি সনের হিসেবে পাথরঘাটা মসজিদের বয়স ৩শ ৩৯ বছর (১৪৪১-১১০২ হিঃ) খ্রিস্টিয় হিসেবে ১৬৮০ সাল হবে। মসজিদে প্রবেশের জন্য পূর্ব দেয়ালে ৩ টি দরজা রয়েছে। মোগল আমল থেকেই ওযাকফ জমি লাখেরাজ। মোগল শাসক সে সময় মসজিদের ব্যয় নিবাহের জন্য ১২ টাকা ২ আনা নির্ধারণ করেন। বার বার সংস্কারের জন্য সেই সময়ের কারুকাজ এখন আর নেই। শুধু কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে মুন্সীগঞ্জের পাথরঘাটার মোগল মসজিদটি।-গোলাম আশরাফ খান উজ্জ্বল

মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের চর বানিয়াল গ্রামে “চর বানিয়াল জামে মসজিদ” নামক একটি মসজিদ

 অন্যান্য ফটো গ্যালারি